Jan 24, 2008

সমাবর্তন-৫: Yesterday once more...



Just like before
 It’s yesterday once more


সিলেট জীবনটাই ছিল অন্যরকম। যারা বাইরে থেকে সিলেটে প্রথমবার গিয়েছিলাম, তাদের কাছে অনেকটা হিজরত করার মত ব্যাপার। চেনা একটি শহর ছেড়ে অচেনা অন্য শহরে যাওয়া। সমাবর্তনের ২টি দিন সেই অচেনা শহরে ছয় বছর কাটানো সময়ের স্মৃতিময় ঝলকানি।

ভার্সিটির প্রথম (২০০১) এবং শেষদিন (২০০৬) এখন অনায়াসে মনে পড়ে। বড় অডিটোরিয়ামে গিয়ে সবাই জড়ো হয়েছি। পার্থ স্যার এসে ভাঙ্গা ভাঙ্গা ইংরেজীতে লেকচার দেওয়া শুরু করেছে। একটু পরে জাফর স্যার এসে হাজির। বেড়াল মারার গল্প, সাথে ভারী ভারী কিছু কথা। বের হয়ে নতুন মেস সুরমায় চলে গেলাম। স্বাধীন জীবনের শুরু। মেসের ২/৩ জন মিলে চলে যাই আম্বরখানায় [মদিনা মার্কেট তখন শূন্য]। প্রয়োজনীয় হাড়ি-পাতিল কিনে আনি। রাতে বসে একনাগাড়ে এলোপাথাড়ী গল্প।

শেষদিন বড় অদ্ভুত। ইউনিভার্সিটি অনির্দিষ্টকালের জন্যে বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে। ফাইনাল পরীক্ষা দিয়ে বসে আছি থিসিস প্রেজেন্টেশনের জন্যে। তারিখ পিছিয়ে পরের মাসে গেলো। যে যার মতো ফিরে আসলাম নিজ পিতৃস্থলে। শুরু এবং শেষটা একইরকম হল। যে যার মতো বিচ্ছিন্নভাবে সিলেটে গিয়েছিলাম, বিচ্ছিন্নভাবেই শেষবারের মত চলে এসেছি।

এর ঠিক দেড় বছর পর সমাবর্তনে আবার সবাই একসাথে হয়েছি। ভার্সিটি অনেক সুন্দর সাজিয়েছে। যেখানেই ঢুঁ মারি সেখানেই স্মৃতিও ছায়ার মত সাথে সাথে ঢুঁ মারে। কে যেন প্রথমদিন জিজ্ঞাসা করল, ওই বড় টয়লেট চাপসে! কোনটাতে যামু রে? একটু চিন্তা করে কোনো সন্দেহ ছাড়াই ৩১০ নম্বর রূমের উত্তর পাশের টয়লেটে যাবার পরামর্শ দিলাম। কনভোকেশনের পরদিন ১ম বর্ষেই ইন্ডিয়া এক্সপোর্টেড সমিত আসলো সিলেটে। ফোনে ওকে রাস্তা-ঘাট চেনাতে হল!! এরপর মেডিকেলের উল্টোদিকে একটা রেষ্টুরেন্টে আড্ডা দিলাম।

সাত তারিখ রাতে বড় একটা গ্রুপ ঢাকায় ফেরত আসছে। বাস স্টেশনে গিয়েছি ওদের সিলেট থেকে আবার বিদায় দেবার জন্যে। এরমধ্যে দেখি রাজী আর নায়েম ভাই গাড়ী নিয়ে হাজির। খাদেম ব্রীজে যাবে। রওনা দিলাম ১১.৩০ টার দিকে। ব্রীজে যখন পৌছলাম তখন রাত ১২.৩০। পাশেই সুরমা নদী। তিনজনই শীতের মধ্যে লম্বা হয়ে ব্রীজের ফুটপাতে শুয়ে পড়লাম। তারা-স্নান বলে বাংলায় কোনো শব্দ আছে কিনা জানি না। তবে, তারাগুলো হাত বাড়িয়ে ধরতে কোনোমতে বাকি রেখেছিলাম।

Carpenters এর পুরোনো, অসম্ভব সুন্দর একটা গান আছে, স্মৃতি-জাগানিয়া টাইপের। স্মৃতি-চারণের সব গল্পই যেহেতু অসমাপ্ত থাকে, এই চলতে থাকা গল্পগুলোও নাহয় টু বি কনটিনিউড হয়ে থাকুক।।

When I was young
I'd listen to the radio
Waitin' for my favorite songs
When they played I'd sing along
It made me smile.
 
Those were such happy times
And not so long ago
How I wondered where they'd gone
But they're back again
Just like a long lost friend
All the songs I loved so well...


[সমাপ্ত]

4 টি মন্তব্য:

Unknown বলেছেন...

এই ব্লগ টা আমার লাইফ এর একটা বড় সংরহ হিশাবে থাকবে। থ্যাঙ্কস রুমন।

..::Didar::.. বলেছেন...

লেখাটা কেমন জানি কম কম মনে হচ্ছে...মনে হচ্ছে অনেক অপূর্নতা আছে......আর লেখাটা অনেক ছোট হয়ে গেছে...............

to be continued হলে ভাল হতো...

Anonymous বলেছেন...

সমাবর্তনের ব্যানারে লিখতে গেলে সমাবর্তনের কথাই কম থাকে। তাই, লেখার মধ্য থেকেই হঠাৎ কলম থামিয়ে দিলাম। সময়ের প্রেক্ষিতে আমরা নিজেরাই যেহেতু পূর্ণ নই, স্মৃতি-চারণেও পূর্ণতা বলতে আসলে কিছু নাই।

তানিম বলেছেন...

হথাথ হথাথ পুরন স্ম্রিতি জেগে উথে মনের মাঝে, আসেপাসে থাকে না কেউ শনবার জন্য, তখনি ত বন্ধু তমাই বলে দেই মনে কথা, দুয়ার ত শব শময় খলা, এই ব্লগ এর পাতাই ...।